মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

শরীয়তপুর ডেভেলমেন্ট সোসাইটি (এসডিএস)

জেলা ওয়েব পোর্টালে আপলোড করার জন্য যে সকল তথ্য প্রয়োজনঃ

 

১। এনজিও/ বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের নামঃ এসডিএস (শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি)।

 

২। প্রতিষ্ঠাকাল ও সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ

এসডিএস একটি বেসরকারী সংস্থা হিসেবে ১৯৯১ সালের ১ লা সেপ্টেম্বর আত্ন প্রকাশ করে। যুগ-যুগামত্মরের নদীভাঙ্গা শরীয়তপুর জেলাবাসীর নিত্যদিনের সঙ্গী। প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন- বন্যা, ঘুর্ণিঝড়, অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, অপরিকল্পিত পরিবার ব্যবস্থাপনা, অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, কর্মসংস্থানের অভাব ইত্যাদি কারণে অভাব গ্রস্থ শরীয়তপুরবাসীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন, মানবিক উন্নয়ন, শিক্ষা, চিকিৎসা ও দুস্থ্য মানুষের পুনবার্সনের মাঙ্গলিক চিমত্মা চেতনা থেকে শরীয়তপুরের রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি, শরীয়তপুর ইউনিটের সম্পাদক জনাব মজিবুর রহমান স্থানীয় কিছু সাংবাদিক, রেডক্রিসেন্ট কর্মী, ব্যবসায়ী, আইনজীবি ও চিকিৎসকদের নিয়ে ক্ষুদ্র পরিসরে শরীয়তপুর পৌরসভা ও সদর উপজেলার তুলাসার ইউনিয়নে উন্নয়ন ও সেবামূলক কাজ শুরূ করেন। ১৯৯৩ সাল থেকে দাতা সংস্থা অক্সফ্যাম- জিবি এর আর্থিক সহায়তায নারীর ক্ষিমতায়ন নামক প্রকল্পের কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে দাতা সংস্থার সাথে কাজের পরিধি বিসত্মৃত হয়। পরবর্তীতে ১৯৯৬ সাল থেকে পলস্নী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে এসডিএস শুরম্ন করে দরিদ্র নারীদের নিয়ে ক্ষুদ্র ঋণ প্রকল্প। পাশাপাশি কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, স্যানিটেশন, আইন সহায়তা, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিযোজন সহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত করছে। বর্তমানে শরীয়তপুর জেলার গন্ডি পেরিয়ে বাংলাদেশের মধ্য ও দক্ষিণাঞ্চলের শরীয়তপুর, মাদারীপুর, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, রাজবাড়ী, মুন্সীগঞ্জ, বাগেরহাট, নড়াইল, চাঁদপুর, পটুয়াখালী জেলায় বিভিন্ন কর্মকান্ড সম্প্রসারিত করেছে।

 

দাতা সংস্থাঃ

বর্তমানঃপলস্নী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ), অক্সফ্যাম জিবি, অক্সফ্যাম নভিব, ক্রিশ্চিয়ান এইড বাংলাদেশ, আইসিডিআই-নেদারল্যান্ডস, দি এশিয়া ফাউন্ডেশন, ম্যাক্স ফাউন্ডেশন, ইনক্লুসিভ হোম সলিউশন্স লিমিটেড ও সিআইএটি/আইএফপিআরআই ইত্যাদি।

 

পূর্ববর্তীঃপলস্নী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ), অক্সফ্যাম জিবি, অক্সফ্যাম নভিব, অক্সফ্যাম ইউকে, অক্সফ্যাম আই, সেভ দি চিলড্রেন, এ্যাকশন এইড বাংলাদেশ, কনসার্ন ওয়ার্ল্ড ওয়াইড, ইউএনডিপি, ইউনিসেফ, বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচী, এফএও, দি এশিয়া ফাউন্ডেশন, ইউএসএইড, কেয়ার বাংলাদেশ, দি একশন কন্ট্রা লা ফেইম, আইসিডিআই-নেদারল্যান্ড, সিডিএমপি, সরকারী বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প, ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন, এমসিসি, টেট্রা টেক/এআরডি, ইত্যাদি।

 

ভিশনঃ

দারিদ্রতা মুক্ত একটি ন্যায্য সমাজ যেখানে থাকবে সমতা ও বাসযোগ্য পরিবেশ।

 

মিশনঃ

দূর্যোগের ঝুঁকি ও বিপদাপন্নতা  হ্রাস, মানসন্মত শিক্ষা, স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতকরন, আয় ও দক্ষিতা বৃদ্ধিমূলক কর্মকান্ডের সুযোগ সৃষ্টি ও মানবাধিকার চর্চার মাধ্যমে ন্যায্য সমাজ প্রতিষ্ঠা করা।

 

 

৩। এনজিও ব্যুরো কতৃক নিবন্ধিত কিনা?

    হ্যঁা।

প্রতিষ্ঠানের নাম

নিবন্ধিত রেজিষ্ট্রেশন নং

নিবন্ধের সাল

সমাজসেবা

শরী - ৭৭/৯২

১৯৯২

এনজিও বিষয়ক ব্যুরো

৭৯৪/৯৩

১৯৯৩

জয়েন্ট ষ্টক এ্যক্ট

এস-৬৪৫৬(৭০০)/০৭

২০০৭

মাইক্রোক্রেডিট রেগলেটরি অথরিটি

০৩০৭৪-০৪৬১৬-০০২২৯

২০০৮

 

৪। অফিস প্রধানের নাম ও পদবীঃ জনাব মজিবুর রহমান, নির্বাহী পরিচালক

 

 

৫। পরিচালিত প্রকল্প সমুহের তালিকাঃ(মাইক্রোক্রেডিট, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আইনী, অন্যান্য)

K.ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অব আল্ট্রাপুওর (কাপ) প্রকল্পঃ

দুর্যোগ প্রবন হতদরিদ্রদের সক্ষিমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে জীবন মান উন্নয়নের জন্য ২০০৭ সালে অক্সফ্যাম নভিবের আর্থিক সহযোগিতায় শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন ও ডামুড্যা উপজেলার ১টি ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের নিয়ে এই কর্মসুচী বাসত্মবায়িত হচ্ছে। এই প্রকল্পের কার্যক্রম হচ্ছে হতদরিদ্র জনগোষ্টির মহিলাদের সংগঠিতকরন, অধিপরামর্শ, সচেতনাবৃদ্ধি, জীবিকা উন্নয়ন, জীবিকা উন্নয়নে সম্পদ হসত্মামত্মর, দুর্যোগঝুঁকি হ্রাস ও প্রযুক্তি অভিযোজন, উপানুষ্ঠানিক কার্যক্রম ইত্যাদি।

 

L.গার্ল পাওয়ার প্রকল্পঃ

আমত্মর্জাতিক শিশু উন্নয়ন উদ্যোগ-আইসিডিআই এর আর্থিক সহযোগিতায় শরীয়তপুর জেলার ৬টি উপজেলায় গার্ল পাওয়ার প্রকল্পটি বাসত্মবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পে লক্ষ্য হচ্ছে ‘‘গার্ল ও নারীদের প্রতি জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতা কমানো’’। প্রকল্পের উদ্দেশ্য হচ্ছে ‘‘স্থানীয় সিভিল সোসাইটির সক্ষিমতা বৃদ্ধি করা যাতে লবি ও এ্যাডভোকেসির উদ্যোগে সরকারে নীতি পলিসিকে প্রভাবিত করে কিশোরী ও নারীদের অধিকার ও ন্যায্যতা নিশ্চিত করবে, কিশোরী ও নারীদের অধিকার বিষয়ে সরকারী সেবা ও কর্তব্যরত প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের সচেতনতা বৃদ্ধি করা, কিশোরী ও নারীদের আইনগত নিরাপত্তার প্রক্রিয়াকে শক্তিশালী করা এবং কিশোরী ও নারীদের অধিকার বিষয়ে সক্ষিমতা বৃদ্ধি করা। প্রকল্পের মুল কার্যক্রম হচ্ছে সিভিও গঠন, প্রশিক্ষিণ, এ্যাডভোকেসি, কর্মশালা, সমাবেশ, প্রতিবাদ ও র‌্যালী, লোকজ সংগীত ও প্রশিক্ষিণ ইত্যাদির মাধ্যমে সিভিও, কিশোরী, নারী, সরকারী সেবা ও কর্তব্যরত প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের সচেতনতা ও দক্ষিতা বাড়ানো।

 

M.              বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ প্রকল্পঃ

আমত্মজার্তিক শিশু উন্নয়ন উদ্যোগ আইসিডিআই এর আর্থিক সহযোগীতায় শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও ফরিদপুর জেলায় বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ প্রকল্প পরিচালিত হচ্ছে। প্রকল্পের প্রধান কাজ হচ্ছে বাল্য বিবাহের কুফল সম্পর্কিত ভিডিও শো প্রদর্শন, পথ নাটক, অভিভাবক কাউন্সিলিং ইত্যাদি। এছাড়া ইউনিয়ন পর্যায়ে শিশু সুরক্ষা কমিটির কার্যক্রম গতিশীল করন এবং বাল্য বিবাহমুক্ত ইউনিয়ন ঘোষণার ক্ষিত্রে ভুমিকা রাখা।

 

N.                 প্রমোটিং কমিউনিটি বেসড ওয়াটার, স্যানিটেশন এন্ড হাইজিন প্র্যাকটিস ইন দি রম্নরাল এরিয়া অব শরীয়তপুরঃ

ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের সহযোগীতায় শরীয়তপুর জেলার সদর উপজেলার ২টি ইউনিয়ন ও ভেদরগঞ্জ উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ১৫ ফেব্রম্নয়ারী ২০১২ সাল থেকে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এই প্রকল্পের অধীনে নারী ও শিশুদের মৃত্যু এবং রোগ ব্যাধি কমানোর মাধ্যমে জনস্বাস্থ্যর অবস্থার উন্নয়ন। শরীয়তপুর জেলার গরীব এবং প্রামিত্মক জনগনের জন্য নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন এবং হাইজিন অভ্যাস সমূহের অধিগম্যতা বাড়ানোর জন্য কাজ করে আসছে। প্রকল্পের অধীনে এ পর্যমত্ম ১৬২টি নলকূপ ও ৩১৯০ সেট স্বাস্থ্যসম্মত ল্যাট্রিন স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া কর্মএলাকায় ৬০জন নারীকে নিরাপদ প্রসব বিষয়ে প্রশিক্ষিণ প্রদান করা হয়েছে, যারা এলাকায় বর্তমানে কর্মরত আছেন।

 

O.দুর্যোগ ঝুকি হ্রাস ও জলবায়ুপরিবর্তনে অভিযোজন বিষয়ে সক্ষিমতা বৃদ্ধি প্রকল্পঃ

ক্রিশ্চিয়ান এইড-বাংলাদেশের আর্থিক সহযোগিতায় শরীয়তপুর জেলার দুর্যোগ প্রবণ ভেদরগঞ্জ ও নড়িয়া উপজেলায় প্রকল্পটি বাসত্মবায়িত হচ্ছে।  প্রকল্পের উদ্দেশ্য হচ্ছে  সক্ষিমতাবৃদ্ধির মাধ্যমে দুর্যোগ প্রবণ স্থানীয় জনগোষ্ঠির দুর্যোগ ও জলবাযু পরিবর্তন জনিত প্রভাব কমিয়ে আনা। প্রকল্পের কার্যাবলী হচ্ছে ওয়ার্ড পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন, ইউনিয় পরিষদের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিগুলোর কার্যক্রম সচল করা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিগুলোকে প্রশিক্ষিনের মাধ্যমে সক্ষিমতা বৃদ্ধি করা, কমিউনিটি পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার পরিকল্পনা করা, কমিউনিটি পর্যায়ে দুর্যোগ ঝুকি হ্রাসের পরিকল্পনা করা, দুর্যোগের আগাম সর্তকবার্তা প্রচার করা, আপদকালিন পরিকল্পনা করা, বসতভিটা উঁচুকরন, আয়বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রম ও প্রশিক্ষিন , নিরাপদ পানি ও পয়:নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা।

 

P.নির্বাচন মনিটরিং ও নাগরিক শিক্ষা প্রকল্পঃ 

অধাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন উৎসাহিত করনের মাধ্যমে গণতন্ত্রের ভিত্তি সুসংহত করা। দীর্ঘমেয়াদী ও স্বল্প মেয়াদী পর্যবেক্ষিণসহ নির্বাচন প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষিণ ও মনিটরিং এর মাধ্যমে জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে সহায়তা করা এবং ভোটার ও নাগরিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা। অধিক জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে নাগরিক উদ্যোগ ও তাদের অংশগ্রহণ শক্তিশালী করা। নির্বাচন প্রক্রিয়া অধিকতর সংস্কারের জন্য এ্যাডভোকেসি ও লবিং করা।

 

Q.হারভেস্ট পস্নাস প্রকল্পঃ 

Centro International Tropical Agriculture (CIAT) এর অর্থায়নে হারভেস্ট পস্নাস প্রকল্পের সহযোগীতায় উচ্চ জিংক সমৃদ্ধ ব্রি ধান-৬৪ জাতের উচ্চ ফলনশীল ধান বীজ বিতরণের মাধ্যমে কৃষকদের সহযোগীতা প্রদান এবং এ বিষয়ে কৃষকদের প্রশিক্ষিণ ও মাঠ দিবস পালন করা হয়।

 

R.স্বল্প মূল্যে গৃহ নির্মাণ প্রকল্পঃ 

নেদারল্যান্ড ভিত্তিক দাতা সংস্থা ‘‘ইনক্লুসিভ হোম সলিউশন্স লিমিটেড’’ এর আর্থিক সহাতায় যে সকল গ্রাহক সংস্থার ঋণ কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত থেকে বিভিন্ন টেকসই আয়বৃদ্ধিমুলক কর্মকান্ড বাসত্মবায়ন করে জীবন যাত্রার মানের উন্নয়ন করতে সক্ষিম হয়েছে, কিন্তু থাকার জন্য মানসম্মত বাসস্থান ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারেনি। গৃহ নির্মাণ করতে হলে তার আয়বৃদ্ধিমুলক কর্মকান্ড বাসত্মবায়নে বাধাগ্রস্থ হয়, তাদের জন্য এ প্রকল্পের অধীনে সহজ শর্তে ও স্বল্প সুদে অর্থাৎ ৭.৫% হারে ৬ বছর মেয়াদে গৃহ নির্মাণের জন্য ঋণ প্রদান করা হয়। 

 

S.এসডিএস একাডেমীঃ

২০০৭ সালের জানুয়ারী মাসে নিজস্ব অর্থায়নে ৩৫ জন ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে পেস্ন-গ্রম্নপ থেকে যাত্রা শুরম্ন করে। আজকে পেস্ন-গ্রম্নপ থেকে পঞ্চম শ্রেনী পর্যমত্ম স্কুলটি শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত করে আসছে। বর্তমানে স্কুলটিতে মোট ২৩২ জন ছাত্র- ছাত্রী রয়েছে, তারমধ্যে ছাত্র সংখ্যা-১২০ এবং ছাত্রী সংখ্যা-১১২। একাডেমীতে সংস্থার দরিদ্র উপকারভোগী পরিবারের মেধাবী সমত্মানদের বিনামূল্যে বা নাম মাত্র খরচে পড়াশুনার ব্যবস্থা রয়েছে। বর্তমানে একাডেমীতে শিক্ষিক ও শিক্ষীকা সহ মোট ১৭ জন কর্মচারী রয়েছে। বর্তমানে একাডেমিটি জেলার একটি ভাল স্কুল হিসাবে পরিগনিত হচ্ছে। প্রতি বছর পঞ্চম শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষায় ১০০% কৃতকার্য হয়ে আসছে।

 

T.উপ-আনুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমঃ

অক্সফ্যাম নভিব এর অর্থায়নে কাপ প্রকল্পের আওতায় ১১ টি শিক্ষাকেন্দ্রে ৩৩০ জন ছাত্র ছাত্রী অধ্যয়নরত আছেন, যাদের সবাই মেঘনা নদী বেষ্টিত চরাঞ্চলের হতদরিদ্র এবং শিক্ষার সুযোগ বঞ্চিত পরিবারের সদস্য। শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৮০% ভাগ নারী শিক্ষার্থী। এসব স্কুলের উপস্থিতি শতভাগ। শিক্ষার গুনগত মান বজায় রেখে পাঠ দান অব্যাহত আছে। এছাড়া পলস্নী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) সহযোগীতায় সমৃদ্ধি প্রকল্পের মাধ্যমে ভেদরগঞ্জ উপজেলার কাঁচিকাটা ইউনিয়ন ও গোসাইরহাট উপজেলার গরীবেরচর বর্তমান আলাওলপুর ইউনিয়নে মোট ৬০টি শিক্ষা সহায়তা কেন্দ্রের মাধ্যমে ১৬৬৪ জন ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষা দান করে আসছি।

 

U.  প্রশিক্ষিণ ইউনিটঃ

এসডিএস এর প্রধান কার্যালয়ে একটি প্রশিক্ষিণ ইউনিট রয়েছে যার অধীনে ছোট বড় মিলিয়ে ৩টি প্রশিক্ষিণ কেন্দ্র আছে। এই প্রশিক্ষিণ কেন্দ্রে এসডিএস এর বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মীদের প্রশিক্ষিণ/উপকারভোগীদের প্রশিক্ষিণ ছাড়া ও বিভিন্ন সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান প্রশিক্ষিণ পরিচালনা করে আসছে। এই প্রশিক্ষিণ ইউনিটের মাধ্যমে অতিথিদের বাসস্থানের জন্য একটি আবাসন ব্যবস্থা রয়েছে যেখানে দেশী বিদেশী বিভিন্ন অতিথিরা রাত্রী যাপন করে থাকেন।

 

V.মাইক্রোফাইনান্স কার্যক্রমঃ

সংস্থার মাইক্রোফাইনান্স ঋণ কার্যক্রম চালু হয় ১৯৯১ সাল থেকে। পরবর্তীতে ১৯৯৫ সাল থেকে পলস্নী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ)-এর অর্থায়নে পরিচালিত হচ্ছে। ২০০৮ সালে মাইক্রোডিট রেগুলেটরী অথরিটি থেকে সংস্থা সনদ গ্রহন করে। দেশের ৫টি জেলার (শরীয়তপুর, মাদারীপুর, গোপালগ্ঞ্জ, ফরিদপুর ও মুন্সীগঞ্জ) ১৮টি উপজেলায় ৪৩টি শাখা অফিসের মাধ্যমে বর্তমান ৫৮৯২২ জন উপকারভোগীকে সংগঠিত করে  ৪৪৭৪৮ জন ঋণীকে তাদের আয়বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার জন্য ঋণ প্রদান করে আসছে। এ পর্যমত্ম লোন বিতরণ (অক্টোবর ২০১৪ পর্যমত্ম) = ৭৭৮,৭৭,৭১,০০০/- এ পর্যমত্ম লোন আদায় (অক্টোবর ২০১৪ পর্যমত্ম) = ৭০১,০৪,৪৯,০৮৪/- বর্তমান ঋণ স্থিতি (অক্টোবর ২০১৪ পর্যমত্ম) = ৭৭,৭৩,২১,৯১৬/। উক্ত উপকারভোগীদের জমাকৃত সঞ্চয়ের স্থিতি (অক্টোবর ২০১৪ পর্যমত্ম) ২৩,৩৮,৫৮,৯২৮/-।

এই কার্যক্রমের অধীনে নিমণলিখিত বিভিন্ন প্রকল্প পরিচালিত হয়ে আসছে, যেমন ১. আরএমসি বর্তমানে জাগরণ, ২. এমই বর্তমানে অগ্রসর, ৩. ইউপি বর্তমানে বুনিয়াদ, ৪. কেজিএফ, ৫. লিফ্ট, ৬. কৃষি ও মৌসুমী বর্তমানে সুফলন, ৭. লো কস্ট, হাউজিং লোন, ইত্যাদি।

 

 

‘সমৃদ্ধি (ENRICH)প্রকল্প ((দারিদ্র্য দূরীকরনের লক্ষ্যে পরিবার কেন্দ্রিক সমন্বিত উন্নয়ন উদ্যোগ): মাইক্রোফাইনান্স কার্যক্রমের অধীনে পলস্নী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর পরিচালনা পর্ষদ গত ২৮ ফেব্রম্নয়ারী ২০১০ইং তারিখে অনুষ্ঠিত সভায় দেশের নির্বাচিত কতিপয় অনগ্রসর ইউনিয়নের দরিদ্র পরিবারগুলোর সামগ্রিকভাবে দারিদ্র্য দূরীকরনের লক্ষ্যে একটি পরীক্ষামূলক কর্মসূচী চালুর সিদ্ধামত্ম নেয়। সে মোতাবেক এই পরীক্ষামূলক কর্মসূচীটি প্রাথমিকভাবে ফাউন্ডেশনের ২১টি নির্বাচিত সহযোগী সংস্থার মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ২১ টি অনগ্রসর ইউনিয়নে নভেম্বর ২০১০ইং মাস হতে বাসত্মবায়ন শুরম্ন হয়েছে। তন্মধ্যে শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (এসডিএস) এ প্রকল্পটি বাসত্মবায়নের জন্য বেছে নিয়েছে শরীয়তপুর জেলাধীন ভেদরগঞ্জ উপজেলার কাঁচিকাটা ইউনিয়নকে।

উক্ত প্রকল্পের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে- একটি পরিবারের বর্তমান সম্পদ ও সক্ষিমতার সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করন এবং যথাযথ পরিমিতিতে এর সম্পদ ও সক্ষিমতা বৃদ্ধির জন্য উদ্যোগ গ্রহন করা। এই কর্মসূচীতে টেকসইভাবে দারিদ্র্য দূরীকরনের লক্ষ্যে পরিবার ভিত্তিক সমন্বিত উন্নয়ন ধারায় কাঁচিকাটা ইউনিয়নের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির জন্যই PKSF এর আর্থিক সহায়তায় SDS এক কঠিন চ্যালেঞ্জ হিসাবে এই সমৃদ্ধি প্রকল্প বাসত্মবায়নের উদ্যোগ নেয়। উন্নয়ন ধারার সঙ্গে সম্পৃক্ত প্রায় সকলেই অমত্মত: একটি বিষয়ে একমত হবেন যে, কেবলমাত্র ক্ষুদ্রঋনের মাধ্যমে দারিদ্র্য হ্রাস করা সম্ভব নয়। তাই প্রকৃত অর্থে দেশের দারিদ্র্য দূরীকরনের জন্য স্বাস্থ্য, শিক্ষা, পুষ্টি, মানবাধিকার, জেন্ডারসহ দরিদ্র মানুষের জীবন-জীবিকা সংশিস্নষ্ট অন্যান্য অনুসঙ্গ নিয়ে সমন্বিত উন্নয়ন কর্মসূচীর প্রয়োজন রয়েছে। তাই ‘সমৃদ্ধি’ কর্মসূচী এরই আলোকে প্রনীত হয়েছে। বর্তমানে ‘সমৃদ্ধি’ প্রকল্পটি শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার কাচিকাঁটা ইউনিয়ন ও গোসাইরহাট উপজেলার গরীবেরচর (আলাওলপুর) ইউনিয়নে বাসত্মবায়িত হচ্ছে।

   

 

৭। অফিসের ঠিকানাঃ

ক) সদর রোড, শরীয়তপুর সদর, শরীয়তপুর।

খ) ফোন নাম্বারঃ ০৬০১-৬১৬৫৪

গ) মোবাইল নাম্বারঃ ০১৭১৪০১১৯০১

ঘ) ই-মেইল ঠিকানাঃ info@sdsbd.org

ঘ) ওয়েব সাইটঃ www.sdsbd.org

 

 

[বিঃদ্রঃ এনজিওর প্রদত্ত তথ্যের দায়-দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট এনজিও বহন করবে]